উইকিশৈশব:এটা কীভাবে কাজ করে/পারমাণবিক বোমা

বি৪৩ ছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি একটি পারমাণবিক বোমা, এটি তারা ১৯৬১ থেকে ১৯৬৫ সালের মধ্যে তৈরি করেছিল।

কে এটি আবিষ্কার করেছে?সম্পাদনা

১৯৩৪ সালে এনরিকো ফার্মি এবং তার সহকর্মীরা যখন ইউরেনিয়ামকে নিউট্রন কণা দিয়ে আঘাত করার ফলাফল অধ্যয়ন করেন, সেই সময় থেকে মানুষ বুঝতে শুরু করে যে পারমাণবিক শক্তি ব্যবহার করে একটি বোমা তৈরি করা যেতে পারে — যে কোন শক্তি দ্রুত মুক্তি পেলে সেটি বোমায় পরিণত হতে পারে। এই ধারণাটিকে সক্রিয়ভাবে বাস্তবে রূপ দিয়ে বোমা তোইরির জন্য বিজ্ঞানীদের রাজী করতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এসে গিয়েছিল। হিটলারের শাসনে, জার্মানরা এই ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি প্রাথমিক অনুসন্ধান করে ফেলেছিল এবং তারা সঠিক পথেই এগোচ্ছিল। কিন্তু তারা বোমা তৈরির মতো ক্ষমতায় কখনোই পৌঁছোতে পারেনি। মিত্রশক্তি জার্মানদের এই প্রচেষ্টা সম্পর্কে জানত, তারা সক্রিয়ভাবে অন্তর্ঘাত চালিয়েছিল এবং তাদের ধ্বংস সাধনের চেষ্টা করছিল। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ব্রিটেন এবং কানাডাকে সঙ্গে নিয়ে একত্রে ম্যানহাটন প্রজেক্ট শুরু করেছিল, তারা ইচ্ছাকৃতভাবে তৎকালীন মিত্র সোভিয়েত ইউনিয়নকে এর থেকে বাদ রেখেছিল। ম্যানহাটন প্রকল্পটি রবার্ট ওপেনহাইমারের নেতৃত্বে শুরু হয়েছিল, বিশেষভাবে প্রথম পারমাণবিক বোমার নকশা করা এবং তারপর বোমা নির্মাণের জন্য।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন এই স্বাধীন প্রচেষ্টাগুলির ওপর সোভিয়েতরা শুরু থেকেই নজর রেখে গোয়েন্দাগিরি করে যাচ্ছিল। এটা বলা যেতে পারে যে এটি ছিল ভবিষ্যৎ স্নায়ু যুদ্ধের (কোল্ড ওয়্যার) প্রাথমিক পদক্ষেপ, কারণ পারমাণবিক বোমা ভূ-রাজনৈতিক শক্তির ভারসাম্যের পরিবর্তন করে দিয়েছিল। লক্ষণীয় যে সোভিয়েতরা প্রথম থেকেই পদার্থবিজ্ঞানের এই নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে বড় অবদান রেখে চলেছিল এবং অনেকাংশেই ম্যানহাটন প্রজেক্ট থেকে শুধুমাত্র গুপ্তচরবৃত্তির তথ্য ব্যবহার করেই তাদের নিজস্ব বোমা তৈরি করতে সক্ষম হয়েছিল। এটি ছিল তাদের লক্ষ্য সংরক্ষণের জন্য যাচাইকরণ এবং সরলীকরণের একটি সরঞ্জাম।

এটি তৈরি করার আগে কোন ধারণা(গুলি) এবং/অথবা উদ্ভাবনগুলি বিকাশ করতে হয়েছিল?সম্পাদনা

একটি অস্থায়ী তালিকায় অবশ্যই অগ্নি, সরঞ্জামের ব্যবহার, বিজ্ঞান, যন্ত্রবিদ্যা, ধাতুবিদ্যা, খনিজবিদ্যা, রসায়ন, বিস্ফোরক, গণিত (জ্যামিতি এবং বীজগণিত), পদার্থবিদ্যা, তেজস্ক্রিয়তা সংক্রান্ত বিজ্ঞান, প্রকৌশল, অর্থনীতি, রাজনীতি এবং জাতিরাষ্ট্র, "আধুনিক" যুদ্ধাবস্থা (উত্তর - শিল্প যুগ) অন্তর্ভুক্ত ছিল।

ইউরেনিয়াম এবং প্লুটোনিয়ামের মতো ভারী নিউক্লিয়াসে বন্ধনী শক্তি অর্থাৎ ওই পরমাণুগুলিতে কত শক্তি সঞ্চিত থাকে তা আবিষ্কার করতে হয়েছে। 'সঙ্কট ভর' এ (ক্রিটিক্যাল মাস) পৌঁছাতে সক্ষম উপাদান তৈরির প্রক্রিয়াটি খুবই কঠিন এবং সেটি প্রকৌশলী ক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ বাধক ছিল।


 

কর্ম তালিকা:
The need for a specific geometry of the detonator and the precision of the synchronized explosion was also an issue.



এটি কিভাবে কাজ করে?সম্পাদনা

 
এই চিত্রটি একটি বিদারণ জনিত পারমাণবিক অস্ত্রের বিভিন্ন অংশ দেখাচ্ছে।

পারমাণবিক বোমা দুই প্রকার, বিদারণ (ফিশন) বোমা এবং একীকরণ (ফিউশন) বোমা। বিদারণ মানে বিচ্ছিন্ন হওয়া এবং একীকরণ মানে একীভূত হওয়া।

'বিদারণ বোমা' যে নীতিতে কাজ করে সেটি হল, অনেক প্রোটন এবং নিউট্রনকে একটি নিউক্লিয়াসের মধ্যে একত্রিত রাখতে প্রচুর শক্তির প্রয়োজন হয়। একে মনে করতে পারো, একটি ভারী গাড়িকে গড়িয়ে পাহাড়ের ওপরে উঠিয়ে নিয়ে যাবার মতো। নিউক্লিয়াসকে বিভক্ত করলে সেই শক্তির কিছু অংশ মুক্তি পায়। ভেঙে ফেলার ফলে যে পরমাণু পাওয়া গেল তাদের নিউক্লিয়াস অস্থিতিশীল থাকে, যার মানে তারা সামান্য বা কোন ধাক্কা ছাড়াই আবার ভেঙে যায়।

তুমি হয়তো শুনে থাকবে ইউরেনিয়াম এবং প্লুটোনিয়ামের কথা এবং আরও শুনে থাকবে যে তারা তেজস্ক্রিয় উপাদান। এই দুটি পরমাণুর অস্থিতিশীল নিউক্লিয়াসই তাদের তেজস্ক্রিয়তার কারণ। যখন একটি বড় নিউক্লিয়াস ভেঙে দুটি ছোট নিউক্লিয়াসে পরিণত হয়, কয়েকটি নিউট্রন তার থেকে ছুটে বেরিয়ে যায়। একে বলা হয় বিকিরণ। প্রাকৃতিকভাবে উদ্ভূত ইউরেনিয়াম এবং প্লুটোনিয়ামের পরমাণুগুলির ক্রমাগতভাবে তেজস্ক্রিয় ক্ষয় হয়ে চলেছে। এগুলি পর্যাপ্ত দূরত্বে থাকে যাতে নিউট্রনগুলি অন্যান্য অস্থিতিশীল নিউক্লিয়াসের সাথে ধাক্কা না খায়।

যখন একটি নিউট্রন, একটি অস্থিতিশীল নিউক্লিয়াসে আঘাত করে, ঠিক কেউ যেমন পাহাড়ের চূড়ায় গাড়িকে নিচের দিকে ধাক্কা দেয়, সেইরকমই এটি সেই নিউক্লিয়াসকে ভেঙ্গে ফেলে এবং আরও কয়েকটি নিউট্রনকে মুক্ত করে দেয়। এই অস্থির পরমাণুগুলির ঘনত্ব যদি বৃদ্ধি করা হয়, একটি ক্ষয় থেকে প্রাপ্ত নিউট্রন আরেকটি পরমাণুকে ধাক্কা মেরে ভেঙে ফেলবে, এই ঘটনার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। পরমাণুর যে ঘনত্বে বিক্রিয়াটি নিজেই চলতে থাকে তাকে বলা হয় সঙ্কট ভর এবং বিক্রিয়াটিকে বলা হয় প্রবাহ বিক্রিয়া (চেন রিয়্যাকশান)।

বিক্রিয়ার প্রতিটি ধাপে, শক্তি নির্গত হয় এবং পরের একটি বা দুটি ধাপ শুরু হয়ে যায় এবং তাই বিক্রিয়া ও তার সঙ্গে অপ্রতিরোধ্য পরিমাণে শক্তি মুক্তি চলতে থাকে যতক্ষণ না বিদারণ (অস্থিতীশীল) উপাদানটি শেষ হয়ে যায়। প্রকৃতপক্ষে, লোহার নিউক্লিয়াসের (Fe৫৬ যার ৫৬টি নিউক্লিয়ন আছে) চেয়ে ভারী যে কোনো নিউক্লিয়াস বিদারিত হলে শক্তি মুক্ত করবে। অন্যদিকে হালকা নিউক্লিয়াস সাধারণত যখন একত্রিত হয় বা একীকরণ করে, তখনও শক্তি মুক্ত করে। সর্বাধিক শক্তি নির্গত হয় যখন দুটি হাইড্রোজেন নিউক্লিয়াস একীভূত হয়ে হিলিয়াম নিউক্লিয়াস তৈরি করে। তেজস্ক্রিয় উপাদানগুলির বিপরীতে, দুটি হিলিয়াম নিউক্লিয়াসকে একত্রিত করতে প্রচুর শক্তি লাগে। গাড়ির উপমাটি মাথায় রেখে বলা যায়, গাড়িটি যেন পাহাড়ের চূড়ায় একটা গর্তে পড়ে গেছে এবং নিচে গড়িয়ে যাবার জন্য একে খুব জোরে ধাক্কা দিতে হবে।

একীভূত বোমার প্রথম ধাপে, একটি বিদারণ বোমা দিয়ে হাইড্রোজেনকে প্রচণ্ড তাপমাত্রায় গরম করে প্রাথমিক শক্তি তৈরি হয়। সূচনাকারী বিদারণ বন্ধ হয়ে যাওয়া এবং হাইড্রোজেন বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার মধ্যে সেকেন্ডের ভগ্নাংশ সময়ে, তাপমাত্রার কারণে এটি একীভূত হয়ে হিলিয়াম তৈরি করে এবং বহুগুণ বেশি শক্তি মুক্ত হয়।

একটি দূষিত "পারমাণবিক" বোমার বিশেষ ঘটনাসম্পাদনা

একটি দূষিত বোমাকে আলগাভাবে পারমাণবিক বোমাও বলা যেতে পারে তবে এতে বিদারণ বোমার উপাদানের প্রয়োজন হয় না, রাসায়নিক অস্ত্রের সাথে এর মিল বেশি। এটি একটি এলাকা জুড়ে তেজস্ক্রিয় দূষক ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য একটি প্রচলিত বিস্ফোরক ব্যবস্থা ব্যবহার করে। এখন পর্যন্ত এই ধরনের কোন বোমা ব্যবহার করা হয়নি। তবে এর প্রভাবগুলি চেরনোবিলের মতো বৃহৎ বায়ুমণ্ডলীয় পারমাণবিক বিপর্যয়ের মতোই হবে।

এটি কতটা বিপজ্জনক?সম্পাদনা

 
হিরোশিমা শহর, পারমাণবিক বোমায় ধ্বংস হবার আগের অবস্থা।
 
হিরোশিমা শহর, পারমাণবিক বোমায় ধ্বংস হবার পরের অবস্থা।

সংরক্ষিত অবস্থায় বোমাটি খুব বিপজ্জনক নয়, কারণ একে চালু করতে বেশ কিছু প্রচেষ্টা লাগে। একবার বিস্ফোরিত হলে তা অত্যন্ত বিপজ্জনক। এমনকি যারা বিস্ফোরণ ও আগুন থেকে বেঁচে যায় তারাও বিভিন্ন মাত্রার বিকিরণের শিকার হয় (বেশিরভাগই নির্ভর করে তারা বোমার কতটা কাছাকাছি ছিল)। বিস্ফোরণে মৃত্যু, ক্যান্সার, লিউকিমিয়া বা প্রজনন অঙ্গের ক্ষতি হতে পারে, প্রজনন অঙ্গের ক্ষতি হলে জন্ম ত্রুটি, বা এমনকি সম্পূর্ণ বন্ধ্যাত্বও আসতে পারে।

যুদ্ধে মাত্র দুটি পারমাণবিক বোমা ব্যবহার করা হয়েছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বোমা ফেলেছিল জাপানের হিরোশিমা এবং নাগাসাকি শহরে। এই বোমা হামলায় নিহতের সংখ্যা ছিল কয়েক লাখ।

হিরোশিমায়, বিস্ফোরণের তাৎক্ষণিক প্রভাবে প্রায় ৭০,০০০ মানুষ মারা যায়। এর পরে, পুড়ে যাওয়া, বিকিরণ এবং সেই সম্পর্কিত রোগে ৯০,০০০ থেকে ১,৪০,০০০ এর মধ্যে আরও মানুষ মারা যায়।

 
নাগাসাকি, পারমাণবিক বোমার আগে (উপরে) এবং পরে।

পারমাণবিক "ভুল"সম্পাদনা

এটি এমন একটি ঘটনা যার ফলে মানুষ, পরিবেশ বা দক্ষতার ওপর গভীর প্রভাব পড়েছে। ১৯৫৪ সালে প্রথম পারমাণবিক চুল্লি নির্মাণের পর থেকে পারমাণবিক দুর্ঘটনার প্রভাব একটি বিতর্কের বিষয় হয়ে উঠেছে। পারমাণবিক সাবমেরিন দুর্ঘটনাগুলির মধ্যে রয়েছে কে-১৯ (১৯৬১), কে-১১ (১৯৬৫), কে-২৭ (১৯৬৮), কে-১৪০ (১৯৬৮), কে-৪২৯ (১৯৭০), কে-২২২ (১৯৮০), এবং কে- ৪৩১ (১৯৮৫) দুর্ঘটনা।

পারমাণবিক অতিকথা এবং লোককাহিনীসম্পাদনা

প্রলয়ের ঘড়িসম্পাদনা

এর কাজ কি?সম্পাদনা

পারমাণবিক বোমার বিস্ফোরণ, যেকোনো বিস্ফোরণের মতো, তাপ এবং গতিশক্তির (বল) আকারে প্রচুর পরিমাণে শক্তি নির্গত করে, এটি শব্দ, তাপ এবং আলোর জন্যও দায়ী। একটি বিস্ফোরণের আকার বোমার উৎপন্ন বস্তুর (শক্তি) উপর নির্ভর করে এবং সেটি নির্ভর করে তার গঠনের ওপর। এটি একটি "যুদ্ধক্ষেত্র" মোটামুটি ছোট পারমাণবিক বিস্ফোরণ থেকে শুরু করে একটি খুব বড় শহর ধ্বংস করার জন্য যথেষ্ট বড় বিস্ফোরণ পর্যন্ত হতে পারে। পারমাণবিক যন্ত্রের শক্তি মুক্ত করার ক্ষমতা এতটাই বেশি যে এটি মানবজাতির সবচেয়ে শক্তিশালী বিস্ফোরণগুলির মধ্যে একটি।

বাতাসে বিস্ফোরিত পারমাণবিক অস্ত্র থেকে নির্গত শক্তি চারটি উপায়ে বিভক্ত হয়:

  • বিস্ফোরণ—মোট শক্তির ৪০ থেকে ৫০%
  • তাপীয় বিকিরণ - মোট শক্তির ৩০ থেকে ৫০%
  • আয়নীয় বিকিরণ - মোট শক্তির ৫%
  • অবশিষ্ট বিকিরণ - মোট শক্তির ৫ থেকে ১০%

বোমার উৎপন্ন বস্তু এবং বিস্ফোরণের পরিবেশের উপর নির্ভর করে, এটি স্থলভূমিতে আঘাত তরঙ্গ তৈরি করতে পারে, যা প্রাকৃতিকভাবে ঘটে যাওয়া সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্পের চেয়েও শক্তিশালী। সেই শক্তি এবং শব্দ তরঙ্গ একাই যথেষ্ট দূরত্বে পৌঁছাতে পারে এবং একাই ঘরবাড়ি ধ্বসিয়ে দিতে পারে এবং মানুষকে শেষ করে দিতে পারে। বিস্ফোরণটি এতটাই শক্তিশালী যে এর কেন্দ্রে একটি শূন্যতা তৈরি হয়; যাতে শক্তি সম্প্রসারণ শেষ হয়ে যাবার পরে বাতাসকে আবার বিস্ফোরণ বিন্দুতে টেনে নেওয়া হয়।

এই বিশাল শক্তি শুধুমাত্র সূর্যের চেয়ে কয়েকগুণ শক্তিশালী একটি আলো তৈরি করে (বস্তুর উচ্চ শক্তির সংঘর্ষের কারণে) তা নয় চারপাশের বাতাসকেও দূরে ঠেলে দেয়, এটিকে প্রসারিত করতে বাধ্য করে, এই ত্বরণ এত শক্তিশালী একটি আঘাত তরঙ্গ তৈরি করে যা সম্পূর্ণ শহরগুলিকে নিজেই ধ্বংস করতে সক্ষম। এর গতিশক্তিও তাপে পরিণত হয়ে একটি বিশাল আগুনের গোলা তৈরি করে। শুধুমাত্র এই তাপই মানুষকে পুড়িয়ে মেরে দেবে এবং বিস্ফোরণের স্থান থেকে মাইলের পর মাইল দূরে আগুনের সৃষ্টি করবে। কিন্তু প্রধান ধ্বংস এবং প্রভাব হল বিকিরণ যা আশেপাশের লোক, যারা অলৌকিকভাবে বেঁচে গেল, তাদের জন্য ভয়ানক দুর্ভোগ নিয়ে আসে। শুধুমাত্র তাদেরই নয়, এছাড়াও যারা পরবর্তী তেজস্ক্রিয় দূষণের সীমার মধ্যে বসবাস করে, তাদের ওপরে বিষক্রিয়া হয় এবং কয়েক প্রজন্মের (জীবনকাল) জন্য জিনগত ত্রুটি সৃষ্টি করে।

অন্য যেকোন ধরনের বোমা, যেগুলিকে জীবন বা স্থাপনার কৌশলগত উদ্দেশ্যে বিস্ফোরণ ঘটানো হয়, তার থেকে পারমাণবিক অস্ত্রভাণ্ডার একদম আলাদা। এটি এখন পর্যন্ত শুধুমাত্র রাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রণে আছে এবং দীর্ঘ ও প্রকাশ্য সংঘাত এড়াতে সেগুলি প্রাথমিকভাবে একটি প্রতিরোধক এবং রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে কাজ করে। লক্ষ্য করো যে এই বোমা কি ভাবে ব্যবহার করা হবে তার দিকে বিশেষ মনোযোগ দেওয়া হয়। একটি "অশোধিত" বোমা যা একটি বিমান থেকে ফেলার উদ্দেশ্যে ছিল, সেখান থেকে শুরু করে এটি আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্রের জন্য প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত পেলোডে (পেলোড হল এমন বস্তু যেটি একটি বিমান বা উৎক্ষেপণ যন্ত্র বহন করে) পরিণত হয়েছে, যেহেতু প্রথম নিক্ষেপটি কৌশলগতভাবে নির্ধারণ করবে পারমাণবিক সংঘাতের ফলাফলে কে কম ভুগবে, সেখানে কোন বিজয়ী থাকেনা।

কিভাবে এটি বিশ্বের পরিবর্তন করেছে?সম্পাদনা

পারমাণবিক বোমা এখন পর্যন্ত তৈরি করা সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক অস্ত্রগুলির মধ্যে একটি। কিন্তু এটির বিকাশই বিশ্বকে বদলে দিয়েছে তা নয় বরং এই উপলব্ধি থেকে বদল এসেছে যে দেশগুলি এই ধরনের অস্ত্র ব্যবহার না করার কথা বিবেচনা করবে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র জাপানের হিরোশিমা এবং নাগাসাকি শহরে দুটি পারমাণবিক বোমা ফেলেছিল। এটি করা হয়েছিল মূলত জাপান যাতে তাড়াতাড়ি আত্মসমর্পণ করে সেই জন্য। আত্মসমর্পণ হয়ে গেলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে আর জাপান আক্রমণ করতে হবে না এবং রাশিয়া জাপানের অঞ্চলগুলিতে আক্রমণ শুরু করবে না। বেপরোয়া ধ্বংস এবং বোমা হামলার তাৎক্ষণিক এবং দীর্ঘমেয়াদী প্রভাব পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের বিরুদ্ধে একটি শক্তিশালী অনুভূতি তৈরি করেছে।

পার্শ্ব নোট

Nuclear explosions that took place from 1945 up to 1998 in a time-lapse video map , by Japanese artist Isao Hashimoto. Since the U.S unleashed the first nuclear bombs on Hiroshima and Nagasaki back in 1945 there have been a staggering 2056 nuclear tests recorded worldwide.
It took almost a year until the next major tests took place, but by the mid-50s and 60s, nuclear tests were being recorded across the globe on almost a monthly basis.

জাপানের বিরুদ্ধে বোমা ব্যবহারের পর, বিশ্ব রাজনৈতিক শক্তির নিরিখে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দিকে একটি বড় পরিবর্তন হয়ে গিয়েছিল, এই ক্ষমতার বলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রাশিয়া সরকারের প্রধান ব্যক্তি স্ট্যালিনের সাথে পূর্বের সমঝোতা খারিজ করে দিয়েছিল। রাশিয়া দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এলাকা এবং প্রভাব এলাকা সম্পর্কে মিত্র ছিল। এই নতুন ভারসাম্যহীনতা ছিল পারমাণবিক অস্ত্র প্রতিযোগিতার সূচনা, এই সঙ্গে পারমাণবিক পরীক্ষাগুলি ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়ে পরিবেশের উপর কঠোর প্রভাব পড়েছিল।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হওয়ার পরপরই, পূর্ববর্তী প্রধান শক্তি এবং প্রধান মিত্র যুক্তরাজ্য এবং এর যুদ্ধ-পূর্ব সাম্রাজ্যের সমর্থনে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইউরোপে সোভিয়েতদের (ইউএসএসআর) সম্প্রসারণের অগ্রগতি রোধ করার জন্য পদক্ষেপ নেয়। এটি বিশ্বকে কয়েক দশক ধরে চলা স্নায়ু যুদ্ধ নামে পরিচিত একটি ক্ষমতা সংগ্রামের দিকে ঠেলে দিয়েছিল। উভয় পক্ষের একে অপরকে সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করার জন্য পর্যাপ্ত পারমাণবিক বোমা ছিল। এগুলি ব্যবহার হলে সমগ্র বিশ্বের জনসংখ্যার জন্য ভয়ানক ক্ষতি করত। এই কারণেই সকলেই যুদ্ধ এড়ানোর চেষ্টা করছিল, একটি কৌশল তৈরি হয়েছিল পারস্পরিকভাবে নিশ্চিত ধ্বংসকার্য (এমএডি), যা স্নায়ু যুদ্ধের সময় বিশ্ব রাজনীতিকে প্রভাবিত করেছিল এবং মহা শক্তিধরদের মধ্যে ভারসাম্যকে সংজ্ঞায়িত করেছিল।

খরচ, অর্থনৈতিক এবং সামাজিক প্রভাবসম্পাদনা

 

কর্ম তালিকা:
Cover the maintainability costs, security, improvements and keeping the cycle of the required nuclear material. This includes running a more dangerous kind of nuclear power plants(byproducts and some with increased halflife).



পারমাণবিক বিস্তার ও চোরাচালান (গোপন বিস্তার)সম্পাদনা

 

কর্ম তালিকা:
Include the false case used to promoted the US/Iraq War. Include state sponsored smuggling like Pakistan / North Korea -> Iran or US/Germany and Israel. Make a distinction between Nuclear knowledge, infrastructure and nuclear materials. Nuclear Proliferation Treaties. States and non-state agencies. Israel bombing of Syrian Nuclear Project (Operation Orchard) and Iraq's Osirak Nuclear Research Facility. Fall of the Soviet Union. Forms of proliferation: dual use and modification.



পারমাণবিক শক্তি নাশসম্পাদনা

পারমাণবিক শক্তি নাশের প্রধান লক্ষ্য হল ভূ-রাজনৈতিক পারমাণবিক তলের সমস্ত বিরোধী শক্তিগুলির মধ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য রক্ষা করা, যেমন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বনাম রাশিয়া বা পাকিস্তান বনাম ভারত এবং কম পরিমাণে চীন বা এমনকি নিকট ভবিষ্যতে ইসরায়েল, ইরান এবং সৌদি আরব। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানের সাথে উত্তর কোরিয়া ক্রমাগত দাবী আদায়ের যে খেলাটি খেলে তারও এটি কেন্দ্রীয় বিন্দু।

যদিও চুক্তির মাধ্যমে বিশ্ব বা আঞ্চলিক প্রভাবের ফলে ক্রমাগত ক্ষমতার লড়াইয়ে থাকা সেই দেশগুলির সংস্থানগুলিকে সংরক্ষণ করে, যেখানে অর্থনৈতিক এবং প্রযুক্তির উন্নতি পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যাপক উৎপাদনের ক্ষমতার থেকে বেশি প্রাধান্য পেতে পারে। একই সঙ্গে এই পারস্পরিক সম্মতিতে নেওয়া কৌশলটিতে ত্রুটিও রয়েছে, এটি স্পষ্টতই এক পক্ষের সুবিধা করে দিচ্ছে। উদাহরণস্বরূপ যে জাতি উৎপাদন এবং ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ পদ্ধতি সম্পর্কিত প্রযুক্তির মাধ্যমে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির জন্য উন্নত প্রযুক্তিগত (দূরত্ব, অলক্ষিতে গমন বা উত্তরণ এবং ক্ষুদ্রকরণ) ক্ষমতা রাখে এবং উন্নত বিস্ফোরণ ব্যবস্থায় একটি সুবিধা লাভ করে, পারমাণবিক পরীক্ষার উপর নিষেধাজ্ঞার ফলে, তাদের ওপর এটি এবং আন্তঃমহাদেশীয় বিতরণ যানবাহনগুলিকে আটকানো এবং নিষ্ক্রিয় করার ক্ষমতা ব্যবহার না করার জন্য চাপ সৃষ্টি করবে। এছাড়াও বিরোধীদের (সামাজিক-অর্থনৈতিকভাবে) প্রভাবিত করার ক্ষমতা থেকে বঞ্চিত করবে এবং পারমাণবিক অস্ত্রের মজুদ ও গতিবিধি সনাক্ত ও পর্যবেক্ষণ করতে দেবেনা।

কার কাছে "বোমা" আছে?সম্পাদনা

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ভারত, পাকিস্তান, রাশিয়া, উত্তর কোরিয়া এবং চীন সবাই স্বীকার করে যে তাদের পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে। ইসরায়েল এটি স্বীকার করে না তবে বিশ্বাস করা হয় যে তাদেরও পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে; এটি দক্ষিণ-আফ্রিকা/অ্যান্টার্কটিকার কাছে করা একটি দাবিহীন পরীক্ষা দ্বারাও সমর্থিত (ভেলা ঘটনা), এছাড়াও ইসরায়েল পারমাণবিক অস্ত্রের উপাদান কিনেছে।

দক্ষিণ আফ্রিকার সরকার ১৯৯০ সালে তার সমস্ত পারমাণবিক অস্ত্র ভেঙে ফেলে। তারা বিশ্বের প্রথম জাতি, যারা স্বেচ্ছায় যে সমস্ত পারমাণবিক অস্ত্র নিজেই তৈরি করেছিল, সেগুলি ত্যাগ করেছে।

আরও অনেক রাষ্ট্র আছে যাদের পারমাণবিক অস্ত্র গোপনে তৈরি করা হতে পারে বা পারমাণবিক রাষ্ট্রের সাথে একরকম চুক্তির মাধ্যমে রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ২০০৯ সালের নভেম্বরের মধ্যে, বেলজিয়াম, জার্মানি, ইতালি, নেদারল্যান্ডস এবং তুরস্ক ন্যাটোর অংশ হিসাবে মার্কিন পরমাণু অস্ত্র রক্ষণ করেছে।

ব্যাপক পারমাণবিক-পরীক্ষা-নিষেধ চুক্তি সংস্থাসম্পাদনা

তথ্যসূত্রসম্পাদনা