উইকিশৈশব:এটা কীভাবে কাজ করে/মেটাল ডিটেক্টর

এটি কে আবিষ্কার করেন?সম্পাদনা

অষ্টাদশ শতকের দশকের শেষের দিকে, অনেক বিজ্ঞানী এবং প্রকৌশলী তাদের বিদ্যুতের জ্ঞান ব্যবহার করে একটি মেশিন আবিষ্কার করার চেষ্টা করেছিলেন যা ধাতব কণা খুঁজে পেতে সক্ষম। এটি মূল্যবান পাথর খুঁজে পেতেও ব্যবহার করা যেতে পারে, তাই এটি প্রচুর অর্থ উপার্জন পথ খুলে দেয়। জার্মান পদার্থবিজ্ঞানী হেনরিখ উইলহেম ডোভ মেটাল ডিটেক্টরের জন্য মৌলিক নীতি আবিষ্কার করেছিলেন, যা ব্যবহার করে একশ বছর পরে মেটাল ডিটেক্টরে তৈরি হয়। প্রথম দিকের যন্ত্রগুলি ঢালু ছিল এবং প্রচুর ব্যাটারি শক্তি ব্যবহার করত এবং খুব অল্প দূরত্বের জন্য কাজ করতে সক্ষম ছিল। মেটাল ডিটেক্টরের উন্নত সংস্করণ ১৯৩০-এর দশকে তৈরি হতে শুরু করে।

গেরহার্ড ফিশার নামে একজন বিজ্ঞানী এমন একটি পদ্ধতি বের অরতে চেয়েছিলেন যা বলে দেবে আপনি কোথায় আছেন এবং আপনি কোন দিকে যাচ্ছেন। যা আজকের জিপিএস (গ্লোবাল পজিশনিং সিস্টেম) এর অনুরূপ। এটি সত্যিই ভালই কাজ করেছিল, কিন্তু ড. ফিশার লক্ষ্য করেন যে, যেখানে মাটিতে পাথরের সাথে আকরিকের (আকরিক হল পাথর যা ধাতু ধারণ করে) পরিমাণ বেশি সেখানে এই যন্ত্র ঠিকমতো কাজ করছিল না সমস্যা দেখা দিচ্ছিল। তিনি ভাবেন এই বৈশিষ্ট্য ব্যবহার করে মাটির নিচে ধাতু খুঁজে পাওয়া যেতে পারে। ১৯৩৭ সালে তিনি একটি মেটাল ডিটেক্টর তৈরির প্রথম পেটেন্ট পান। তার নকশাগুলি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় মাইন ডিটেক্টর হিসাবে ব্যবহৃত হয়েছিল (খনিগুলি বোমা যা ভূগর্ভে লুকানো থাকে)। তখনকার মেটাল ডিটেক্টর ভারী ছিল, এতে ভ্যাকুয়াম টিউব ছিল এবং আলাদা ব্যাটারি প্যাকের প্রয়োজন ছিল। যুদ্ধের পরে, বাজারে প্রচুর অবশিষ্ট মাইন ডিটেক্টর রয়ে যায়। এগুলি খনিজ বা সম্পদ চোর (ট্রেজার হান্টার)-রা কিনে নেয় এবং অর্থলাভের জন্য ব্যবহার করা শুরু করে। মেটাল ডিটেকশন আস্তে আস্তে শখে পরিণত হয়।

এর ক্ষমতা আসে কোথা থেকে?সম্পাদনা

সাধারণত ব্যাটারি ব্যবহার করে ক্ষমতা পাওয়া যায়।

এটা কিভাবে কাজ করে?সম্পাদনা

ট্রান্সমিটার কয়েল এবং রিসিভার কয়েল এর মাধ্যমে এটি কাজ করে।

এটা কি করে?সম্পাদনা

এটি মূল্যবান পাথর এবং লুক্কায়িত কোন ধাতব বস্তু অনুসন্ধান করতে ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি খনি খুঁজে পেতে এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থায়ও ব্যবহার করা যেতে পারে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, যদি কেউ ধাতব বন্দুক বা বোমা বহন করে, মেটাল ডিটেক্টর বুঝতে পারবে (যদি বোমাটি চুম্বকত্বের প্রতি সংবেদনশীল হয় তবে এটি বোমাটিকে বিস্ফোরিত করতে পারে।) এটি কোথায় এবং কত দূরে আছে।

এর ধরনগুলি কি কি?সম্পাদনা

মেটাল ডিটেক্টর নিম্নোক্ত তিনটি প্রযুক্তির যেকোনো একটি ব্যবহার করে তৈরি:

অত্যধিক কম কম্পাঙ্ক বা ভেরি লো ফ্রিকোয়েন্সি (ভিএলএফ) স্পন্দন আবেশন‌ বা পাল্‌স ইনডিউসার (পিআই) অধি কম্পাঙ্ক দোলন বা বিট-ফ্রিকোয়েন্সি অসিলেশন (বিএফও)

পৃথিবীর অগ্রগতিতে এর প্রভাব কি?সম্পাদনা

যে সকল দেশে ওযুর খুনি মাটির তলায় এখনো অনাবিষ্কৃত হয়ে রয়েছে, সেখানে ভূমি দখল নিয়ে এখনও যুদ্ধ চলছে, জীবনহানি হচ্ছে। এই অঞ্চলে, মেটাল ডিটেক্টর ব্যবহার করে সমস্যার সমাধান করা যায় এবং এলাকাগুলিকে আবার নিরাপদ করার সর্বোত্তম উপায়। এগুলি গুরুত্বপূর্ণ ঐতিহাসিক আবিষ্কার করতেও ব্যবহৃত হয়েছে।

মজার বিষয়সম্পাদনা

স্কটিশ পদার্থবিজ্ঞানী ও টেলিফোনের আবিষ্কারক আলেকজান্ডার গ্রাহাম বেল ১৮৮১ সালে আমেরিকান প্রেসিডেন্ট জেমস গারফিল্ডের পিছনে থাকা একটি বুলেট খুঁজে বের করার জন্য একটি মেটাল ডিটেক্টর ব্যবহার করেছিলেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা