উইকিশৈশব:এটা কীভাবে কাজ করে/মোবাইল ফোন

কে এটি আবিষ্কার করেছে?সম্পাদনা

মোবাইল ফোন বা মুঠোফোন যেটিকে প্রায়ই সেলফোনও বলা হয়, তার উদ্ভাবনের কৃতিত্ব দেওয়া হয় মটোরোলা কোম্পানির ডঃ মার্টিন কুপারকে। ১৯৭৩ সালের ৩রা এপ্রিল তিনি প্রথম এই পদ্ধতিতে কল করে বা কথা বলে সফলতা অর্জন করেছিলেন।

এটি কিভাবে ক্ষমতা পায়?সম্পাদনা

সমস্ত বহনযোগ্য মোবাইল ফোনে একটি বৈদ্যুতিক ব্যাটারি বা তড়িৎকোষ ব্যবহার করা হয়।

ব্যাটারিগুলি সাধারণত পুনর্ভরণযোগ্য হয় অর্থাৎ ব্যাটারির আধান বা চার্জ কমে গেলে আবার চার্জ দিয়ে ব্যাটারি ভরে নেওয়া যায়। সেইজন্য দরকার মত বারবার চার্জ দিয়ে এই ফোন গুলি বহুদিন ব্যবহার করা যায়। ব্যাটারিকে চার্জ দেওয়ার জন্য, ফোনটি চার্জার নামক একটি যন্ত্রের সাথে সংযুক্ত করা হয় এবং চার্জারটি গাড়ির ব্যাটারি বা ঘরের দেওয়ালে লাগানো বৈদ্যুতিক প্লাগ সকেটের মধ্যে লাগানো হয়। এর ফলে ব্যাটারিতে বিদ্যুৎ শক্তি সঞ্চিত হয়, ব্যাটারি চার্জ হয়ে গেলে মোবাইল ফোন সেই চার্জ ব্যবহার করে কাজ করতে থাকে।

বেশিরভাগ মোবাইল ফোনে সাধারণত ৩.৬ ভোল্টের ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়। ফোনটি কতক্ষণ ব্যবহার করা হবে তার উপর নির্ভর করে একবার ব্যাটারিটি রিচার্জ করার পর সেটি সাধারণত ২ - ৩ দিন চলে।

এটি কিভাবে কাজ করে?সম্পাদনা

মোবাইল ফোন হল একটি টেলিফোন এবং একটি রেডিওর সংমিশ্রণ। টেলিফোনের মতো, তুমি অন্য প্রান্তে কারো সাথে কথা বলতে এবং তার কথা শুনতে পারো, এবং একটি রেডিওর মতো, বিনা তারে তুমি এটিকে বায়ুর মাধ্যমে ব্যবহার করতে পারো। যে সিগন্যাল বা তরঙ্গগুলি একটি মোবাইল ফোনের মধ্যে আসে এবং যেগুলি বাইরে যায় সেগুলি টিভি এবং রেডিওর মতোই সংকেত, শুধুমাত্র অন্যভাবে বিন্যাস করা হয়েছে।

তরঙ্গ বা সিগন্যাল, মোবাইল ফোন এবং একটি বেস স্টেশন বা প্রধান ঘাঁটির মধ্যে একদিক থেকে অন্যদিকে যাওয়া আসা করে। বেস স্টেশন হল এমন একটি যন্ত্র যা সাধারণত যেখান থেকে ফোন ব্যবহার করা হচ্ছে সেখান থেকে এক বা দুই মাইল দূরে থাকে। সেখানে একটি অনেক উঁচু টাওয়ার বা মিনারের ওপর অ্যান্টেনা (যে তড়িৎ চুম্বকীয় তরঙ্গ গ্রহণ বা প্রেরণ করে) লাগানো থাকে। যেহেতু রেডিও সিগন্যাল কোন জিনিসের ওপর দিয়ে লাফিয়ে চলে যেতে পারে এবং দেয়াল ও জানালার মধ্যে দিয়েও চলে যায়, বেস স্টেশনের সাথে যোগাযোগ করার জন্য তোমাকে তার দৃষ্টিসীমার মধ্যে থাকতে হবে না। বেস স্টেশনে কোন তরঙ্গ এসে পৌঁছোলে, তাদের নিয়মিত টেলিফোন তরঙ্গে রূপান্তরিত করা হয় এবং গণ টেলিফোন নেটওয়ার্কের মাধ্যমে তুমি যাকে ফোন করছো তার কাছে পাঠানো হয়। তুমি যদি অন্য পরিষেবা প্রদানকারী মোবাইল ফোনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে চাও, তাহলে তোমার পরিষেবা প্রদানকারী বেস স্টেশন থেকে বেরিয়ে সেটি অন্য বেস স্টেশনটিতে পাঠানো হয়।

এটিকে সেলফোন বলার কারণ হল এটি একটি "সেল" এর ভেতরে কাজ করে। একটি সেল হল একটি ভৌগোলিক অঞ্চল যেখানে একটি বেস স্টেশন অবস্থিত। তুমি যদি সেই সেলে থাকো তবে তোমার সেলফোনটি সেই সেলের ভেতরে অবস্থিত (সেই ভৌগোলিক অঞ্চলে অবস্থিত) বেস স্টেশনের সাথে যোগাযোগ করবে। তুমি যদি একটি অন্য ভৌগোলিক অঞ্চলে চলে যাও, তোমার ফোনের সিগন্যাল নির্বিঘ্নে সেই ভৌগোলিক অঞ্চলের ভেতরে একটি অন্য বেস স্টেশনে স্থানান্তরিত হয়ে যাবে। সেলগুলিকে ছোট রেখে এবং প্রতি কয়েক মাইল অন্তর অনেক বেস স্টেশন রাখার ফলে, অনেক ফোন ব্যবহারকারী একই সময়ে বিভিন্ন স্থান থেকে কথা বলতে পারেন।

 
মোবাইল ফোনের জন্য একটি ট্রান্সমিশন বা প্রেরণ টাওয়ার।

এছাড়াও যেহেতু অনেক সেল আছে, তুমি ফোনটি যেখানে ব্যবহার করছো তার কাছাকাছি একটি বেস স্টেশন পেয়ে যাবেই, তাই তরঙ্গ বা সিগন্যাল পাঠানোর জন্য ফোনটিকে খুব বেশি শক্তি খরচ করতে হবে না। কম শক্তি খরচ মানে ফোনটিকে ছোট রাখা যাবে এবং ব্যাটারির খরচ কম করা যাবে। মনে করো যে তুমি একটি বড় ঘরে একটি পার্টিতে আছো, যেখানে অনেক লোক কথা বলছে। কিন্তু তুমি যদি এমন কারুর সঙ্গে কথা বলো, যে তোমার থেকে তিন ফুট দূরত্বে দাঁড়িয়ে আছে, তাহলে তোমাকে চিৎকার করে কথা বলতে হবে না। সেই রকমই, ঘরের অন্য প্রান্তে থাকা কেউ তাদের কাছাকাছি থাকা অন্য কারো সাথে কথা বলতে পারে এবং তাতে তোমার কথায় কোন অসুবিধা বোধ হবে না।

এটি কত বিপজ্জনক?সম্পাদনা

সঠিকভাবে ব্যবহার করা হলে সেলফোন মোটেও বিপজ্জনক নয়। একটি সেলফোন খুব ছোট (মাইক্রোওয়েভ) কম্পাঙ্কের (ফ্রিকোয়েন্সি) তরঙ্গ ব্যবহার করে বাতাসের মাধ্যমে বেস স্টেশনের সঙ্গে যোগাযোগ করে। এটি করার জন্য, নিজের অ্যান্টেনা থেকে তাকে প্রায় ১ ওয়াট শক্তি প্রেরণ করতে হয়। তুমি একটি একক টুনি বাল্বে ব্যবহার করা শক্তির পরিমাণের সাথে এর তুলনা করতে পারো।

যেহেতু মোবাইল ফোনে কথা বললে মন অন্য দিকে চলে যায়, সুতরাং গাড়ি চালানোর সময় এটি ব্যবহার করা বিপজ্জনক হতে পারে। বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে সেলফোন ব্যবহার করে গাড়ি চালানোর সময় চালকদের বেশি দুর্ঘটনা ঘটে, এমনকি কথা বলার সময় "হ্যান্ডস-ফ্রি" বা হাত খালি রেখে কথা বলার পদ্ধতি ব্যবহার করলেও দুর্ঘটনা ঘটে। ভারত সহ অনেক দেশ এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কিছু রাজ্য গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোনের ব্যবহার সীমাবদ্ধ করার জন্য আইন পাস করেছে।

অনেক পেট্রোল পাম্পে পেট্রোল নেবার সময় মোবাইল ফোনের ব্যবহার নিষেধ করে চিহ্ন এবং নির্দেশিকা দেওয়া থাকে। অল্প হলেও সম্ভাবনা থাকে যে এই সময় সেলফোনে কথা বললে তরঙ্গ থেকে স্ফুলিঙ্গ সৃষ্টি হতে পারে এবং তার থেকে পেট্রোলের বাষ্পে আগুন ধরে যেতে পারে। যদিও সম্ভাবনা খুবই কম, তবুও দুঃখিত হওয়ার থেকে সাবধান হওয়া ভাল, এবং যেখানে বিস্ফোরক গ্যাস থাকতে পারে সেখানে মোবাইল ফোনের মত ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা উচিত নয়।

আসক্তিসম্পাদনা

মোবাইল ফোনের প্রতি আসক্তি একটি গুরুতর বিষয়। যখন তোমার অন্য কোন কাজ করার কথা তখন যদি তুমি ফোন ব্যবহার করতে থাকো বা ফোনে গেম খেলতে থাকো, সেটি আসক্তির পর্যায়ে চলে যাবে। এটি ঘটে কারণ তুমি যখন গেম খেলতে ফোনটি ব্যবহার করছো, তখন তোমার শরীরে ডোপামিন নামক হরমোন নিঃসরণ হচ্ছে। তোমার মস্তিষ্ক আরও বেশি করে ডোপামিন চাইতে থাকে, তাই মস্তিষ্ক তোমাকে আরও বেশি বেশি খেলতে বলে। এইভাবে মস্তিষ্ক কিন্তু নিজের মঙ্গলের বিরুদ্ধেই কাজ করে।

মস্তিষ্ক "ডিসেনসিটাইজেশন" (মানসিক প্রতিক্রিয়াশীলতা হ্রাস করা) বলে একটি প্রক্রিয়া চালায়, এর ফলে আকাঙ্ক্ষিত ডোপামিন পাওয়া আরও কঠিন হয়ে যায়। সেইজন্য খেলার সময় আরও দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হতে থাকে। আমরা এই নেশাকে "মোবাইল ফোনের আসক্তি" বলি।

এর কাজ কি?সম্পাদনা

একটি মোবাইল ফোনের সাহায্যে তুমি প্রায় যেকোন স্থান থেকে টেলিফোন পরিষেবা ব্যবহার করতে পারবে। বেশিরভাগ টেলিফোনকে "ল্যান্ড লাইন" বা "নির্দিষ্ট লাইন" বলা হয়, এর অর্থ তারা বাস্তবিকভাবেই একটি তারের দ্বারা ভূমির সাথে আবদ্ধ থাকে। এই তার দিয়ে ফোন কোম্পানির সাথে সরাসরি যোগাযোগ থাকে, অর্থাৎ এখানে বিনা তারে যোগাযোগ হয় না। একটি বহনযোগ্য বা তার বিহীন ফোনে তুমি কথা বলতে পারো বটে কিন্তু তার গ্রাহক যন্ত্রটি সেই ল্যান্ড লাইনের সাথেই সংযুক্ত থাকে। তার বিহীন ফোনটি তোমার গ্রাহক যন্ত্রের ১০০ - ২০০ ফুটের মধ্যে কাজ করতে পারবে, তার বেশি দূরে গেলে সেটি আর কাজ করবে না।

একটি মোবাইল ফোন কিন্তু তোমাকে আরও বিস্তৃত পরিসরে কথা বলার সুযোগ দেয় এবং তুমি শহর, দেশ বা বিশ্বের যে কোনও জায়গা থেকে আরও অনেক বেশি যোগাযোগ করতে পারো। তোমার কাছে মোবাইল ফোন থাকলে, তুমি যেখানেই থাকো না কেন, যে কোন জায়গায় একটি টেলিফোন কল করতে বা কল গ্রহণ করতে পারবে, কিন্তু শুধুমাত্র তোমার ফোনে সিগন্যাল থাকা দরকার।

এটি কিভাবে পরিবর্তিত হয়?সম্পাদনা

মোবাইল ফোন বা সেলফোনগুলি তাদের কার্যকরী ইউনিটের বিভিন্ন ধরণের ব্যবস্থায় (কনফিগারেশন) আসে। বেশিরভাগই একটি কাঠি আইসক্রিমের আকারের, যাতে একটি প্রদর্শন পর্দা (ডিসপ্লে বা স্ক্রিন) এবং একটি কীপ্যাড থাকে৷ কিছু ব্যবস্থায় ফোনটি ভাঁজ করে রাখা যায়, যেটি খুলে ধরলে তবে ডিসপ্লে এবং কীপ্যাড দেখা যায়, যার ফলে এটি সুরক্ষিত থাকে। এখন স্পর্শ দ্বারা চালিত স্ক্রিন (টাচ স্ক্রিন) সহ মোবাইল ফোন পাওয়া যাচ্ছে।

সেলফোন বড় ও ছোট এবং মৌলিক বা সহজ অথবা অনেক ক্রিয়া সম্পন্ন বা জটিল নানারকমই পাওয়া যায়। কোন কোন ফোনে শুধুমাত্র সাধারণ কল করা যায়, অন্য অনেক ফোনের মধ্যে ছোট ক্যামেরা, গান শোনা বা ভিডিও দেখার জন্য এমপি৩ প্লেয়ার, ডিজিটাল বন্দোবস্ত করার উপায় ইত্যাদি থাকে। বর্তমানে অনেক ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহার করা যায়। এছাড়াও বিভিন্ন পরিষেবা যেমন খবর বা চলচ্চিত্রের তালিকা পাওয়া যায়, অথবা তাৎক্ষণিক বার্তা পরিষেবা ব্যবহার করে বন্ধু বা পরিচিত জনের সঙ্গে খবর আদান প্রদান করা যায়।

মোবাইল ফোনের নতুন নতুন মডেল সবসময় চালু করা হচ্ছে। নতুন শৈলী, নতুন প্রযুক্তি, আরও বৈশিষ্ট্য, দামে কম, ভাল কাজ এইরকম প্রচুর পছন্দ করে নেবার মত মোবাইল ফোন বাজারে পাওয়া যায়।

কিভাবে এটি বিশ্বের পরিবর্তন করেছে?সম্পাদনা

১৯৭৩ সালে মোবাইল ফোন চালু হওয়ার পর থেকে এটি বিশ্বকে আমূল বদলে দিয়েছে। প্রতি বছর আরও এবং আরও মানুষ এই মোবাইল ফোনের মালিক হচ্ছেন। বেশিরভাগ পরিবারে সাধারণত দুই বা তিনটি মোবাইল ফোন থাকেই।

সহজেই যে কারো সাথে, যে কোন জায়গায় যোগাযোগ করার ক্ষমতা একটি শক্তিশালী বন্দোবস্ত। যখন টেলিগ্রাফ প্রথম আবিষ্কৃত হয়েছিল, মানুষ তার সুবিধা উপভোগ করেছিল এবং তারপর টেলিফোনের আবির্ভাবের সাথে সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা একটি নতুন স্তরে উঠে গিয়েছিল। মোবাইল ফোন সেই প্রযুক্তিরই পরবর্তী ধাপ।

সহজে যোগাযোগ হওয়া থেকে শুরু করে আরও ভালোভাবে যোগাযোগের ব্যবস্থা করা গেছে এবং এইভাবে সময় এবং সংস্থানের কার্যকর ব্যবহার করা গেছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো হবার ফলে ভালোভাবে সহযোগিতা করা গেছে, ভালো পরামর্শ পাওয়া গেছে, সময়ের ভালো ব্যবহার করা গেছে, যার ফলে মনের প্রশান্তি বেড়েছে। কঠিন পরিস্থিতিতে মোবাইল ফোন গুরুত্বপূর্ণ উপায় প্রদান করে।

কিন্তু ব্যবহারিক প্রয়োগ বাদ দিলে, এটি সামাজিকভাবে সুবিধা প্রদান করে এবং সেগুলি বেশ আনন্দের। অবস্থান নির্বিশেষে বন্ধু এবং পরিবারের সাথে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করা যায়। তুমি গুরুত্বপূর্ণ কিছু বলার জন্য কথা বলতে পারো অথবা শুধুই গল্প করতে পারো।

অনেক মোবাইল ফোনেই এখন ক্যামেরা আছে, তুমি যে কোন সময় যে কোন জায়গায় ছবি তুলতে পারবে। কিছু লোক কেবল ক্যামেরার জন্যই মোবাইল ফোন কেনে এবং কথা বলা বা কিছু লিখে পাঠানোর জন্য এটি ব্যবহার করে না!

ফোনের মাধ্যমে অনেক কিছু দ্রুত সংগঠিত করতে পারার ফলে অনেকগুলি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা এবং বিতর্ক ঘটেছে। ব্রিটেনে, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির জন্য মালবাহী লরির চালকদের ধারাবাহিক ধর্মঘট সংগঠিত হয়েছিল সম্ভবত এক ব্যক্তি এবং একটি মোবাইল ফোনের দ্বারা। টেলিভিশনের বা পেশাদার আলোকচিত্রী দলকে না পাওয়া গেলে ক্যামেরা এবং ভিডিও সহ মোবাইল ফোন দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ সংঘটনের ছবি তোলার জন্য ক্রমবর্ধমানভাবে এখন এর ব্যবহার হচ্ছে।

এটি তৈরি করার আগে কোন ধারণা(গুলি) এবং/অথবা উদ্ভাবনগুলির বিকাশ করতে হয়েছিল?সম্পাদনা

যেহেতু মোবাইল ফোনটি একটি টেলিফোন এবং একটি রেডিওর সংমিশ্রণ, এই দুটি যন্ত্র হল মোবাইল ফোন তৈরির মূল ভিত্তি। উপরন্তু, রেডিও এবং নিকটস্থ বেস স্টেশনের সাথে এর সংযোগ নিয়ন্ত্রণের জন্য ক্ষুদ্র কম্পিউটার (মাইক্রোপ্রসেসর) প্রয়োজন।

১৮৭৬ সালে আলেকজান্ডার গ্রাহাম বেল টেলিফোন আবিষ্কার করেছিলেন।

১৮৯৬ সালে গুলিয়েলমো মার্কোনি রেডিও আবিষ্কার করেন।

১৯৭১ সালে গ্যারি বুন মাইক্রোপ্রসেসর আবিষ্কার করেছিলেন।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

http://en.wikipedia.org/wiki/Invention_of_radio

Marconi's patents for radio were revoked later, and Nikola Tesla's were re-instated for his invention of radio at a much earlier date.