উইকিশৈশব:পাখপাখালির দেশে/টিয়া

হলদে-নীল ম্যাকাও পা দিয়ে ধরে বাদাম খাচ্ছে
উড়ন্ত হলদে-নীল ম্যাকাও
সব প্রজাতির টিয়ার বিস্তৃতি

টিয়া একটি সুন্দর পাখি যা মানব বসতির কাছে বড় বড় গাছে বাসা বেঁধে থাকে। এটি নিওন্যাথি অধোশ্রেণীর সিটাসিফর্ম বর্গের অন্তর্গত। অনেকেই টিয়া পাখি পুষে থাকেন। সবুজ রঙা টিয়া বাংলাদেশে প্রচুর পাওয়া যায়। সারা পৃথিবীর উষ্ণ ও নিরক্ষীয় অঞ্চলে এই পাখিটি চোখে পড়ে। প্রাণীটি প্রাথমিক ইকোসিন যুগ থেকে বর্তমান যুগ অবধি রয়েছে‌।[১] এর ভাগগুলি হলো; কাকাতুয়া, প্রকৃত টিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের টিয়া।

জীববিজ্ঞানীদের কাছে এই পাখি সিট্টাসিনি হিসেবেও পরিচিত। সিট্টাসিনি নানা রকমের হয়ে থাকে। নানা রকমের সিট্টাসিনিকে ৮৬টি গণে এবং ৩৭২টি প্রজাতিতে বিন্যস্ত করা হয়েছে।[২]

জীববিদ্যার শ্রেণীর অনুযায়ী সিট্টাসিনি সিট্টাসিফর্মিস বর্গের অন্তর্ভুক্ত। সিট্টাসিফর্মিস বর্গটি তিনটি গোত্রে বিভক্ত: সিট্টাসিডি, কাকাতুয়া বা ক্যাকাটুইডি, এবং স্ট্রিগোপোইডি[৩]। টিয়ারা প্রায় সমগ্র নিরক্ষীয় অঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত, এদের কিছু প্রজাতি নাতিশীতোষ্ণ দক্ষিণ গোলার্ধে বসবাস করে। দক্ষিণ আমেরিকাঅস্ট্রেলিয়ায় সবচেয়ে বেশি টিয়ার দেখা মেলে।

তথ্যসূত্রসম্পাদনা

  1. Waterhouse, David M. (২০০৬)। "Parrots in a nutshell: The fossil record of Psittaciformes (Aves)"। Historical Biology18 (2): 223–234। doi:10.1080/08912960600641224 
  2. "Zoological Nomenclature Resource: Psittaciformes (Version 9.013)"। www.zoonomen.net। ২০০৮-১২-২৯। 
  3. Christidis L, Boles WE (২০০৮)। Systematics and Taxonomy of Australian Birds। Canberra: CSIRO Publishing। পৃষ্ঠা 200আইএসবিএন 9780643065116