উইকিশৈশব:রাসায়নিক মৌল/ব্রোমিন

পর্যায়ক্রমিক চার্টে ব্রোমিনের অবস্থান।
পর্যায় সারণীতে ব্রোমিনের প্রতীক

মৌলটি দেখতে, স্পর্শে, স্বাদে, অথবা গন্ধে কেমন লাগে?সম্পাদনা

সাধারণ তাপমাত্রায় ব্রোমিন একটি লালচে-বাদামী রঙের তরল। এটি বিষাক্ত। এর খুব শক্তিশালী কটু গন্ধ রয়েছে যার ফলে চোখ, ফুসফুস এবং গলা জ্বালা করতে পারে।

মৌলটি কিভাবে আবিষ্কৃত হয়েছিল?সম্পাদনা

 
২৫ মিলিলিটার তরল ব্রোমিন। সাধারণ তাপমাত্রায় এটি তরল।

অ্যান্টোইন জেরোম ব্যালার্ড ১৮২৫ সালে এবং কার্ল জ্যাকব লোভিগ ১৮২৬ সালে ব্রোমিন আবিষ্কার করেন। ব্যালার্ড সামুদ্রিক শৈবালের ছাই থেকে এবং লোভিগ তার বাড়ির কাছে একটি ঝর্ণার খনিজ জল থেকে আলাদা ভাবে ব্রোমিন তৈরি করেছিলেন।

মৌলটির নাম কোথা থেকে এসেছে?সম্পাদনা

ব্রোমিন নামটি এসেছে ব্রোম (brôme) শব্দ থেকে, এটি আবার গ্রীক শব্দ βρωμος থেকে এসেছে। যার মানে হলো গন্ধ।

তুমি কি জান?

  • ফ্লোরিনের পরে, ব্রোমিন হলো রাসায়নিক ভাবে সবচেয়ে সক্রিয় মৌল।
  • সাধারণ তাপমাত্রায় ব্রোমিন লাল-বাদামী রঙের তরল।
  • এটি একমাত্র তরল অধাতু।

মৌলটি কোথায় পাওয়া যায়?সম্পাদনা

ব্রোমিন পৃথিবীর ভূত্বকের মধ্যে ব্রোমাইড লবণ হিসেবে পাওয়া যায়। এছাড়া ব্রোমিন সমুদ্রের জলে ব্রোমাইড আয়ন হিসেবে থাকে।

এর ব্যবহার কোথায়?সম্পাদনা

ব্রোমিনের যৌগ আগ্নি প্রতিরোধক এবং কীটনাশকে ব্যবহৃত হয়। গাড়ীর ইঞ্জিনের অবাঞ্ছিত শব্দ(Knocking sound) প্রতিরোধ করার জন্য সীসাযুক্ত পেট্রলে যে সব যৌগ যোগ করা হয় তাতে ব্রোমিনের যৌগ থাকে।

এটা কি বিপজ্জনক?সম্পাদনা

মৌল ব্রোমিন বিপজ্জনক এবং বিষাক্ত।