উইকিশৈশব:সৌরজগৎ/বৃহস্পতি/আইয়ো

আইয়ো তথ্যসমূহ: ১) সৌরজগতের সবচেয়ে সক্রিয় আগ্নেয়গিরিগুলির মধ্যে আইয়ো আছে।
২) আইয়ো অল্প কয়েকটি চাঁদের মধ্যে একটি, যার খুব পাতলা হলেও বায়ুমণ্ডল রয়েছে।
৩) যেকোনো সময়ে, আইয়ো -তে প্রায় ৯টি আগ্নেয়গিরিতে অগ্ন্যুৎপাত হচ্ছে।
৪) আইয়ো বৃহস্পতির এত কাছাকাছি আছে যে বৃহস্পতি তার পৃষ্ঠে "জোয়ার" সৃষ্টি করে। এই "জোয়ার"গুলি এটিকে আগ্নেয়গিরির মত সক্রিয় করে তোলে।
৫) আইয়ো হল বৃহস্পতির মাত্র পাঁচটি চাঁদের মধ্যে একটি, যে সূর্যগ্রহণ ঘটাতে পারে, যেটি বৃহস্পতি থেকে দেখা যায়।
৬) আইয়ো সৌরজগতের চতুর্থ বৃহত্তম চাঁদ।

১৯৯৯ সালে গ্যালিলিও মহাকাশ অনুসন্ধানের মাধ্যমে তোলা আইয়োর একটি ছবি

আইয়ো হল বৃহস্পতির অন্তর্বর্তীতম চাঁদ। ৮৫ আইও, যেটি একটি গ্রহাণু, অথবা আই. ও., যেটি একটি সংক্ষিপ্ত রূপ যা বিভিন্ন জিনিসের জন্য ব্যবহৃত হতে পারে, আইয়ো চাঁদকে তার সাথে বিভ্রান্ত না করার বিষয়ে সতর্ক থাকো।

আইয়ো কত বড়?সম্পাদনা

বৃহস্পতির ৬৬টি চাঁদ রয়েছে,কিন্তু আমাদের চাঁদের সাথে তুলনাযোগ্য বড় চাঁদ মাত্র চারটি আছে। আইয়ো এই চারটির মধ্যে একটি এবং তৃতীয় বৃহত্তম। আইয়ো ৩৬৪২.৬ কিমি বা পৃথিবীর ০.২৮ গুণ প্রশস্ত। পৃথিবীর ভরের মাত্র ১.৪% ভর এর রয়েছে। এটি আকারে আমাদের চাঁদের অনুরূপ (কিন্তু অনেক বেশি রোমাঞ্চকর!)।

এর পৃষ্ঠতল কেমন?সম্পাদনা

 
পৃথিবী এবং পৃথিবীর চাঁদের তুলনায় আইয়োর আকার

আইয়োর একটি "নবীন" পৃষ্ঠতল রয়েছে, বেশিরভাগ চাঁদের যা নেই। এখানে অনেক আগ্নেয়গিরির কার্যকলাপ চলে বলে, এর ভূপৃষ্ঠটি প্রায় ফাটলমুক্ত। এছাড়াও, এর আগ্নেয়গিরিগুলি বেশ অস্বাভাবিক। আইয়োর কম মাধ্যাকর্ষণ এবং আগ্নেয়গিরিগুলির বিস্ফোরণের কারণে, কখনও কখনও তারা মাটি থেকে ৫০০ কিলোমিটার পর্যন্ত উচ্চ পর্যন্ত অগ্ন্যুৎপাত ঘটায়। পৃথিবীর পৃষ্ঠ তল থেকে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের দূরত্ব ৫০০ কিলোমিটারের চেয়ে কম। কখনও কখনও আগ্নেয়গিরিগুলি আরও শান্তভাবে বিস্ফোরিত হয়, পৃথিবীর উষ্ণপ্রস্রবণের মত। আইয়োতে "ঢাল আগ্নেয়গিরি" রয়েছে, যেগুলি বেশিরভাগ লাভা প্রবাহ থেকে গঠিত। আইয়োর তাপমাত্রা অদ্ভুতভাবে পরিবর্তিত হয়। আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতের কিছু জায়গার কাছাকাছি, তাপমাত্রা খুব উচ্চ থাকে। কিন্তু আইয়োর অধিকাংশ অঞ্চলই খুব ঠান্ডা, কারণ এটি সূর্য থেকে অনেক দূরে স্থিত। আইয়োর গড় তাপমাত্রা -১৪৩° সেন্টিগ্রেড। অ্যান্টার্কটিকার সবচেয়ে শীতল তাপমাত্রা −৯০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের চেয়ে এটি অনেক বেশি শীতল।

 
আইয়ো পৃষ্ঠতলের একটি মানচিত্র

আগ্নেয়গিরি ছাড়াও, আইয়োতে অনেক পর্বত, গলিত সালফারের হ্রদ, জ্বালামুখ কুণ্ড এবং শত শত কিলোমিটার দীর্ঘ গলিত সালফার বা সিলিকেটের প্রবাহ রয়েছে। সালফার বিভিন্ন তাপমাত্রায় থাকার কারণে এর পৃষ্ঠের রঙ বিভিন্ন হয়। যখন সালফার গরম হয় এবং ঠান্ডা হয়, তখন এটি রঙ পরিবর্তন করে। এই কারণেই আইয়োর পৃষ্ঠে এতগুলি রঙ রয়েছে। কিছু লোক মনে করে এটি দেখতে একটি পিৎজার মত!

আইয়োর ১০টি নামযুক্ত অঞ্চল রয়েছে (পৃথিবীর অঞ্চলগুলিকে বলা হয় মধ্যপ্রাচ্য, সুদূর পূর্ব, পশ্চিম ইত্যাদি), যেগুলি সবই রেজিও শব্দে শেষ হয়, লাতিন ভাষায় যার অর্থ অঞ্চল বা রিজিয়ন। অধিকাংশ গ্রহ ও নক্ষত্রের নাম যেমন দেবতা এবং পৌরাণিক কাহিনীর অন্যান্য চরিত্রের নামানুসারে দেওয়া হয়েছে, সেই একইভাবে এখানকার সমস্ত অঞ্চলের নাম প্রাচীন রাজ্য এবং পৃথিবীর সাম্রাজ্যের নামে দেওয়া হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ, সবচেয়ে বড় অঞ্চল, কলচিস রেজিও ৫৫০ - ১৬৪ খ্রিস্টপূর্বাব্দের কলচিস সাম্রাজ্যের সাথে সম্পর্কিত।

আইয়োর আগ্নেয়গিরির বৈশিষ্ট্যগুলির সবই গ্রিক এবং রোমান পুরাণ ছাড়া অন্যান্য পুরাণের বিভিন্ন প্রাণীর উপর ভিত্তি করে নামাঙ্কিত। উদাহরণস্বরূপ, মাসুবি এখানকার একটি আগ্নেয়গিরি, কিন্তু জাপানি পৌরাণিক কাহিনী অনুযায়ী তিনি আগুনের দেবতা যিনি পৃথিবীতে ৮টি আগ্নেয়গিরি সৃষ্টি করেছেন বলে কথিত আছে। আরেকটি উদাহরণ হল রা নামে আরেকটি আগ্নেয়গিরি। মিশরের পুরাণে রা ছিলেন সূর্যের দেবতা।

আইয়োর পর্বতগুলির নাম দেওয়া হয়েছে অনেক পুরাণের নামের মিশ্রণে। এগুলি সবই লাতিন শব্দে অস্পষ্টভাবে পাহাড়ের অর্থ বোঝায়। দক্ষিণ -পশ্চিম জার্মানি থেকে কৃষ্ণ সাগর পর্যন্ত প্রবাহিত ড্যানিউব নদীর উপর ভিত্তি করে ড্যানিউব প্ল্যানাম নাম দেওয়া হয়েছে এবং মিশর মনস হল মিশর ভিত্তিক নাম। অন্যদিকে, আইয়ো এবং জিউসের পুত্র এপাফাসের নামানুসারে একটি পাহাড়ের নাম এপাফাস মেনসা দেওয়া হয়েছে; এবং আর একটি পাহাড়ের নাম অট মনস — মঙ্গোলীয় পৌরাণিক কাহিনীতে, অট ই বিবাহের দেবী, যিনি পৃথিবীর শুরুতে, যখন আকাশ এবং পৃথিবী পৃথক হয়েছিল, তখন জন্মগ্রহণ করেছিলেন,

আইয়ো তে একটি দিন কতক্ষণের?সম্পাদনা

 
পশ্চাতপটে বৃহস্পতিকে নিয়ে আইয়োর একটি ছবি, ক্যাসিনি স্পেস প্রোব দ্বারা তোলা

আইয়োর নিজের অক্ষ বরাবর পুরো ঘুরে আসতে ৪২ ঘন্টা (১/ পৃথিবীর দিন) সময় লাগে। বৃহস্পতির চারপাশে একটি প্রদক্ষিণ সম্পন্ন করতেও আইয়োর ৪২ ঘন্টা সময় লাগে। যেহেতু এই সংখ্যাগুলো একই, এর মানে হল যে আইয়োর একই দিক সবসময় জুপিটারের মুখোমুখি হয়। (পৃথিবীর চাঁদও একই ভাবে ঘোরে, যে কারণে তুমি সবসময় চাঁদের সম্মুখ পৃষ্ঠে অন্ধকার এবং উজ্জ্বল আলোক অঞ্চল দিয়ে সৃষ্ট কল্পিত মানুষের মুখটি দেখতে পাবে।)

কার নামে নামকরণ করা হয়েছে?সম্পাদনা

আইয়ো (প্রাচীন গ্রিক Ἰώ) — উচ্চারণ আই-ও — জিউসের (বৃহস্পতি) ১০০ জন প্রেমিকার মধ্যে একজনের নামে নামকরণ করা হয়েছে। সে ছিল এক পরী। পরীরা হল প্রকৃতির প্রফুল্লতা, তারা জল, বন, এবং গুহার সঙ্গে যুক্ত। পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, জিউস আইয়োকে আড়াল করার জন্য তাকে গরুতে রূপান্তরিত করেছিলেন।

কিভাবে আইয়োর মাধ্যাকর্ষণ আমাকে টানবে?সম্পাদনা

যদি তুমি আইয়ো পৃষ্ঠতলের উপর দাঁড়িয়ে থাক, পৃথিবীতে তোমার ওজনের চেয়ে কম ওজন দেখাবে। পৃথিবীতে ২০০ পাউন্ড (৯০ কেজি) ওজনের একজন ব্যক্তি আইয়োতে প্রায় ৩৬ পাউন্ড (১৬ কেজি) ওজনের হবে। সুতরাং এখানকার মাধ্যাকর্ষণ, অবশ্যই, তোমাকে কম টানবে।

এটি কিভাবে আবিষ্কৃত হয়েছিল?সম্পাদনা

 
১৬১০ সালে গ্যালিলীয় চাঁদের প্রথম আবিষ্কারক গ্যালিলিও

সিমোন মারিয়াস এবং গ্যালিলিও গ্যালিলেই উভয়েই আইয়ো আবিষ্কার করেছিলেন। গ্যালিলিও এটি আবিষ্কার করেন ১৬১০ সালের ৭ই জানুয়ারী, এবং মারিয়াসও এটি প্রায় একই সময়ে আবিষ্কার করেছিলেন।