উইকিশৈশব:সৌরজগৎ/বৃহস্পতি/গ্যানিমেড

জুনো মহাকাশযান থেকে গ্যানিমেড।

গ্যানিমেড তথ্য: ১) গ্যানিমেড বৃহস্পতি গ্রহের একমাত্র চাঁদ যেটির নামকরণ করা হয়েছে একজন পুরুষের নামে, এটি আবিষ্কার করেছিলেন গ্যালিলিও।
২) গ্যানিমেড হল সৌরজগতের বৃহত্তম চাঁদ, এটি বুধ বা প্লুটো দুটি গ্রহের চেয়েই বড়।
৩) গ্যানিমেড হল একমাত্র চাঁদ যার চৌম্বক ক্ষেত্র আছে।
৪) গ্যানিমেড সৌরজগতের বৃহত্তম চাঁদ।

গ্যানিমেড কত বড়?সম্পাদনা

গ্যানিমেড ৫২৬২.৪ কিমি বা পৃথিবীর ০.৪১৩ গুণ প্রশস্ত, এটি পৃথিবীর চাঁদের চেয়ে একটু বড়। এটি বৃহস্পতির চাঁদগুলির মধ্যে সবচেয়ে বড় — প্রকৃতপক্ষে এটি সৌরজগতের বৃহত্তম চাঁদ।

 
পৃথিবী, চাঁদ এবং গ্যানিমেডের মধ্যে আকারের তুলনা

এর উপরিতল কেমন?সম্পাদনা

 
গ্যানিমেডের ট্রস ফাটল।

গ্যানিমিডের পৃষ্ঠতল দুটি অঞ্চলে বিভক্ত: অন্ধকার অঞ্চল, এবং আলোক অঞ্চল। অন্ধকার অঞ্চলগুলি খুব পুরানো এবং অত্যন্ত ফাটলযুক্ত, তুলনায় আলোক অঞ্চলগুলি নবীন (কিন্তু প্রকৃতপক্ষে বেশ পুরনো), এই অঞ্চলগুলি খাঁজ এবং শৈলশিরা দ্বারা চিহ্নিত। অবশ্য, উভয় ধরনের ভূখণ্ডেই ফাটল দেখতে পাওয়া যায়, সেগুলি প্রায় ৩ থেকে ৩/ বিলিয়ন বছরের পুরনো।

গ্যানিমেডের ভূত্বক জলের বরফ দিয়ে তৈরি। পৃথিবীর ভূত্বকের মত, এটি বিভিন্ন পাতে বিভক্ত এবং সেগুলি নড়াচড়া করতে পারে। এখানে ফাটল অঞ্চল বরাবর, পর্বতশ্রেণী গঠিত হয়েছে। যেহেতু ভূত্বকের পাতের অবস্থানের পরিবর্তন ঘটতে পারে, তাই এই ফাটলগুলি সমতল হতে থাকে। কখনও কখনও, পুরাতন গর্তগুলি ভূত্বকের ক্ষয়ের কারণে পলিম্পসেস্ট (কিছুটা পরিবর্তিত কিন্তু তবুও তার আগের অবস্থার চিহ্ন দেখা যায়) হয়ে যায়।

সম্প্রতি, হাবল স্পেস টেলিস্কোপ (হাবল মহাকাশ দূরবীক্ষণ যন্ত্র) গ্যানিমেডে অক্সিজেন বায়ুমণ্ডলের প্রমাণ পেয়েছে। এর মানে এই নয় যে গ্যানিমেডে জীবন আছে; মনে করা হয় যে বিকিরণ এর ফলে জলের বরফ ভেঙে গিয়ে এই অক্সিজেন উৎপন্ন হয়েছে। জল (HO) হাইড্রোজেন এবং অক্সিজেনে বিশ্লিষ্ট হয়ে গেছে। ভর কম থাকার কারণে হাইড্রোজেন বিনষ্ট হয়ে গেছে এবং অক্সিজেন এখানকার বায়ুমণ্ডল গঠন করেছে।

গ্যানিমেডে একটি দিন কত বড়?সম্পাদনা

গ্যানিমেডে একটি দিন পৃথিবীতে প্রায় ৭.১৫ দিনের সমান।

বৃহস্পতিকে ঘিরে এর কক্ষপথ কত দীর্ঘ?সম্পাদনা

বৃহস্পতি গ্রহকে কক্ষপথে একবার প্রদক্ষিণ করতে গ্যানিমেড ৭.১৫ দিন সময় নেয়। গ্যানিমেড নিজের কক্ষপথে ঘুরতে যত সময় নেয়, বৃহস্পতিকেও সেই একই গতিতে প্রদক্ষিণ করে।

কার নামে এর নামকরণ করা হয়েছে?সম্পাদনা

 
গ্যানিমেডের আবক্ষ মূর্তি।

গ্যানিমেড (গ্রিক Γανυμήδης) হল একজন সুদর্শন ট্রোজান বালক। তাকে জুপিটার (জিউস নামেও পরিচিত) দেবতাদের কাছে মদ্য-পরিবেশক করে পাঠিয়েছিলেন।

এটি কিভাবে আবিষ্কার করা হয়েছিল?সম্পাদনা

গ্যানিমেড আবিষ্কার করেছিলেন গ্যালিলিও গ্যালিলেই এবং সাইমন মারিয়াস দুজনেই। ১৬১০ সালের ১১ই জানুয়ারি গ্যালিলিও এটি আবিষ্কার করেছিলেন এবং মারিয়াসও প্রায় একই সময়ে একে খুঁজে পেয়েছিলেন।