কুরআন ও আধুনিক বিজ্ঞান/প্রাণিবিদ্যা/মৌমাছি


ভন-ফ্রিশ মৌমাছির আচরণ এবং যোগাযোগের উপর গবেষণার জন্য ১৯৭৩ সালে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন। মৌমাছি, কোনো নতুন বাগান বা ফুল আবিষ্কার করার পর, ফিরে যায় এবং তার সহকর্মী মৌমাছিকে সেখানে যাওয়ার সঠিক দিক ও মানচিত্র বলে, যা 'মৌমাছির নাচ' নামে পরিচিত। কর্মী মৌমাছিদের মধ্যে তথ্য প্রেরণের উদ্দেশ্যে এই পোকার গতিবিধির অর্থ ফটোগ্রাফি এবং অন্যান্য পদ্ধতি ব্যবহার করে বৈজ্ঞানিকভাবে আবিষ্কৃত হয়েছে। কুরআনের উপরের আয়াতে উল্লেখ করেছে যে কীভাবে মৌমাছি দক্ষতার সাথে তার প্রভুর প্রশস্ত পথ খুঁজে পায়।

Bee (46307274).jpeg

তোমার প্রতিপালক মৌমাছির প্রতি এলহাম করেছেন যে, পাহাড়ে, বৃক্ষে আর উঁচু চালে বাসা তৈরি কর। [১৬:৬৮]

অতঃপর প্রত্যেক ফল থেকে আহার কর, অতঃপর তোমার প্রতিপালকের (শিখানো) সহজ পদ্ধতি অনুসরণ কর। এর পেট থেকে রং-বেরং এর পানীয় বের হয়। এতে মানুষের জন্য আছে আরোগ্য। চিন্তাশীল মানুষের জন্য এতে অবশ্যই নিদর্শন আছে। [১৬:৬৯]

কর্মী মৌমাছি বা সৈনিক মৌমাছি হল একটি স্ত্রী মৌমাছি। সূরা আন-নাহলের ১৬ নং অধ্যায়ের ৬৮ এবং ৬৯ নং আয়াতে মৌমাছির জন্য ব্যবহৃত লিঙ্গ হল স্ত্রী লিঙ্গ (ফাসলুকি এবং কুলি), নির্দেশ করে যে মৌমাছিটি খাদ্য সংগ্রহের জন্য তার বাড়ি ছেড়ে যায় একটি স্ত্রী মৌমাছি। অন্য কথায় সৈনিক বা কর্মী মৌমাছি একটি স্ত্রী মৌমাছি।

যাইহোক, শেক্সপিয়রের নাটক "হেনরি দ্য ফোর্থ"-এ, কিছু চরিত্র মৌমাছি সম্পর্কে কথা বলে এবং উল্লেখ করে যে মৌমাছিরা সৈন্য এবং তাদের একজন রাজা রয়েছে। শেক্সপিয়রের সময়ে লোকেরা এটাই ভেবেছিল যে শ্রমিক মৌমাছিরা পুরুষ মৌমাছি এবং তারা বাড়ি যায় ও একটি রাজা মৌমাছির কাছে জবাবদিহি করে। কিন্তু, এটা সত্য নয়। শ্রমিক মৌমাছিরা মহিলা এবং তারা রাজা মৌমাছিকে রিপোর্ট করে না বরং একটি রানী মৌমাছিকে রিপোর্ট করে। তবে এটি আবিষ্কার করতে গত ৩০০ বছরে আধুনিক তদন্ত করতে হয়েছিল।