উইকিশৈশব:সৌরজগৎ/আমাদের সৌরজগৎ

সৌরজগৎ

ভূমিকা
আমাদের সৌরজগৎ
সূর্য
বুধ
শুক্র
পৃথিবী
চাঁদ
মঙ্গল
গ্রহাণুপুঞ্জ
বৃহস্পতি
শনি
ইউরেনাস
নেপচুন
প্লুটো
ধূমকেতু
কুইপার বেষ্টনী
উর্ট মেঘ
পরিভাষাকোষ
পরীক্ষা

হাবল স্পেস টেলিস্কোপ। এটি মহাকাশে অবস্থিত। এটি সাধারণ টেলিস্কোপের চেয়েও বেশি দুরত্বে থাকা বস্তুর ছবি তুলতে পারে।
চিত্র:File:Planets2013symbols.svg
সৌরজগতের ৮ টি গ্রহ, এবং সূর্য। আকৃতি অনুসারে কিন্তু দুরত্ব অনুসারে নয়।

তুমি কি কখনো আকাশের জিনিসগুলো নিয়ে চিন্তা করেছ? সূর্য, চাঁদ কিংবা তারাগুলো নিয়ে? মানুষ অনেক দিন ধরে আকাশ নিয়ে গবেষণা করছে, আকাশে কি আছে তা খুঁজে বের করতে চেষ্টা করছে। আমরা বাইরের মহাকাশ সম্পর্কে আরও জানার জন্য প্রতিনিয়ত নতুন উপায় নিয়ে এসেছি।

সৌরজগৎ কি?সম্পাদনা

গ্রহগুলি শিলা বা গ্যাসের বড় বলের মত যা তারার চারপাশে ঘোরাফেরা করে। আমরা পৃথিবী নামক গ্রহের উপর বসবাস করি, যা সূর্য নামক একটি নক্ষত্রের চারপাশে আবর্তন করে। কমপক্ষে আরও সাতটি গ্রহ এবং অনেক ক্ষুদ্র বস্তু সূর্যকে ঘিরে আবর্তন করে। এ সবকিছুকে একত্রে একটা জগৎ বলা হয়। সূর্যকে ঘিরে আছে বলে আমরা এই জগত-কে সৌরজগৎ বলি। আমাদের নিজস্ব সৌরজগতের অনেক দূরের নক্ষত্রগুলো সূর্যের মতোই কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে নক্ষত্রগুলো তার চেয়েও বড়।

কে সৌরজগৎ আবিষ্কার করেছিলেন?সম্পাদনা

হাজার হাজার বছর আগে, অ্যারিস্টার্কাস নামে একজন ব্যক্তি বলেছিলেন যে সৌরজগৎ সূর্যের চারদিকে ঘুরছে। কিছু লোক তাকে সঠিক বলে মনে করেছিল কিন্তু অনেকে বিশ্বাস করেছিল তার বিপরীতটা; যে সৌরজগৎ সূর্যের (এবং এমনকি অন্যান্য নক্ষত্র) সহ পৃথিবীর চারপাশে ঘুরে। এটিই বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে হচ্ছে, কারণ পৃথিবীকে মনে হয় না যে এটি চলমান, তাই না?

প্রায় ৫০০ বছর আগে কোপার্নিকাস নামে আরেকজন মানুষ এরিস্টার্কাসের মতো একই কথা বলেছিলেন; যে সমস্ত গ্রহ সূর্যের চারদিকে ঘোরে এবং নক্ষত্রগুলি মহাকাশে স্থির।[১] এবার আরও মানুষ রাজি হয়ে গেল কিন্তু এখনও কিছু লোক ছিল যারা তার বিপরীত চিন্তা করছিল। তারপরে, প্রায় ১০০ বছর পরে, গ্যালিলিও গ্যালিলি নামে একজন ব্যক্তি একটি নতুন আবিষ্কার করলেন। তিনি টেলিস্কোপ দিয়ে আকাশের দিকে তাকাতে শুরু করলেন। তিনি দেখিয়েছিলেন যে সমস্ত গ্রহ সূর্যের চারদিকে ঘুরে। এবার আরও বেশি মানুষ ভেবেছিল গ্যালিলিও সঠিক হতে পারে এবং পৃথিবী সত্যিই সূর্যের চারপাশে ঘুরছে। শীঘ্রই, আরও বেশি সংখ্যক মানুষ আকাশ নিয়ে অধ্যয়ন করার জন্য টেলিস্কোপ ব্যবহার করতে শুরু করে। তবে আরও কিছু লোক ছিল যারা ভেবেছিল যে গ্যালিলিও ভুল ছিল এবং মিথ্যা বলার অপরাধে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। এমনকি তাকে আদালতেও নেওয়া হয়েছিল। যে সমস্ত মানুষ তাকে বিশ্বাস করেছিল তারা শিখতে শুরু করেছিল কিভাবে সৌরজগতের গ্রহ এবং অন্যান্য জিনিসগুলি ঘুরছে যাতে তারা প্রমাণ করতে পারে যে তিনি মিথ্যা বলছেন না। এরিস্টার্কাসের হাজার বছর পরে, লোকেরা অবশেষে বলেছিল "ঠিক আছে, পৃথিবী সূর্যের চারদিকে ঘুরছে"। গ্যালিলিওকে আর মিথ্যাবাদী বলা যাবে না।[2]

আমরা কিভাবে সৌরজগৎ গবেষণা করেছিসম্পাদনা

অন্যান্য তারকাদের কী হয়েছে তা দেখার জন্য আমরা খুব বড় টেলিস্কোপ ব্যবহার করতে পারি। আমরা দূরবর্তী নক্ষত্রের ছবিগুলিকে আমাদের নিজস্ব নক্ষত্র সূর্যের ছবির সাথে তুলনা করতে পারি। আমরা উত্তেজনাপূর্ণ সময়ে বাস করছি কারণ প্রথমবারের মতো আমরা মানুষকে মহাকাশে পাঠিয়েছি এবং আমাদের মহাকাশে টেলিস্কোপও রয়েছে। মহাকাশের এই দূরবীনগুলো গ্রহ, আমাদের সূর্য এবং দূরবর্তী নক্ষত্রের হাজার হাজার ছবি তুলে। পৃথিবীতে মানুষ সৌরজগতের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে জানার জন্য ফটো ব্যবহার করে এবং তারা সৌরজগতের সূচনা কীভাবে হয়েছিল তা ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করে। এমনকি লাল গ্রহ মঙ্গলেও আমাদের একটি রোবট আছে যা ঘুরে বেড়ায় এবং পৃথিবীর লোকেরা এটিকে বলে দেয় যে কোথায় যেতে হবে এবং কী ছবি তুলতে হবে। ভবিষ্যতে পৃথিবী এবং সৌরজগতের কী হবে তাও আমরা জানতে চাই।